ঢাকা   রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

নালিতাবাড়ীতে ভূমি দখলের পায়তারা, অনাবাদি ২ একর ৯ শতাংশ জমি

Logo Missing
প্রকাশিত: 02:59:10 pm, 2021-07-29 |  দেখা হয়েছে: 99 বার।

নালিতাবাড়ী  : শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে প্রায় ৫০ বছরের ভোগদখলীয় ও নিজস্ব ভূমি বেদখলের পায়তারা করছে মগবর আলীসহ কতিপয় ব্যাক্তি।

নালিতাবাড়ী উপজেলার কাকরকান্দি মৌজায় ২ একর ৯শতক জমির ক্রয়সূত্রে মালিক ও ভোগদখলকার মৃত হাতেম আলীর স্ত্রী সন্তানদের কাছথেকে জুরপূর্বক বেদখলের পায়তারা করছে কতিপয় ব্যাক্তি। জমির বিরোধের কারনে দুই মৌসুম ধরে অনাবাদী রয়েছে।  

জমির মামলা ও এলাকাবসী সূত্রে জানাযায়, উপজেলার কাকরকান্দি মৌজায় ২একর ৯শতাংশ জমির সাবেক মালিক ছিল কোকিলা দিও। উক্ত ব্যাক্তি খাজনা পরিশোধ করতে না পারায় উক্ত জমি প্রাকাশ্যে নিলামে বিক্রি হয়। সর্বোচ্চ দরদাতা হিসাবে হাতেম আলী ও তার স্ত্রী রাবিয়া খাতুন নিলাম খরিতদার হিসাবে অবধারিত হন। নিয়ম মোতাবেক আদালতের প্রসেস সার্ভার সরেজমিনে হাতেম আলী ও তার স্ত্রীকে ১৯৮৭ সালে দখল বুঝিয়ে দেন। জমি বুঝিয়া পেয়ে ততকালিন ভূমি অফিসে জমা খারিজ কেইস নং ১১৭(1x-1)৯০-৯১ মূলে খারিজি ৪৫১নং খতিয়ান খুলে মালিক হাতেম আলী ও পরবর্তিতে তার ওয়ারিস গন চাষাবাদ ক্রমে ভোগদখল করে আসছেন। বিআরএস রেকর্ড সংশোধনের জন্য হাতেম আলীর ওয়ারিশগণ শেরপুর আদালতে ০৩/২০২১নং মামলা দায়ের করেন। যা বর্তমানে বিচারাধিন রয়েছে। কিন্তু বিচারাধিন মামলায় মগরব আলীগং প্রতিদ্বন্দীতা না করিয়া মগরবআলীর মায়ের বীরঙ্গনা খেতাব এর অপব্যাবহার করে বেআইনি ভাবে জোরপূর্বক জমি বেদখল, মিথ্যা ফৌজদারি মামলা ও শারিরিক ভাবে নির্যাতন ও হয়রানি করে আসছে। একাধিকবার গ্রাম্য শালিসের সিদ্ধান্তও অমান্য করে। মগরবআলীগং  লোকমূখে প্রকাশ্যে বলে বেরাচ্ছে, যে কোন মূল্যে উক্ত ভুমি দখল করে নিবেই।

যেকোন সময় এজমি নিয়ে দাঙ্গা হাঙ্গামা ও প্রানহানির ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী জানায়।
জমির সংলগ্ন বাড়ীর গৃহীনি ফরিদা বেগম (৫০)বলেন, আমার বিয়ের পর থেকেই হাতেম আলীকে এই জমি চাষাবাদ করতে দেখতেছি।

আরএকব্যাক্তি নূর মোহাম্মদ (৬৫) বলেন স্বাথীনতার পরথেকেই এই জমির মালিক হাতেম আলী চাষাবাদ করে আসছে। কোনদিন মগরব আলীদের ভোগদখল বা মাছ চাষ করতে দেখি নাই।

মৃত হাতেম আলীর স্ত্রী রাবেয়া খাতুন দু:খ করে বলেন, এই জমি আমি ও আমার স্বামী মগরবদের কাছ থেকে গ্রাম্য দলিল মূলে ও সরকারের নিকট থেকে নিলাম সুত্রে ক্রয় করে প্রায় ৪৫ বছর যাবত ভোগদখল করে  আসতেছি। মগরবের মা আছিরন বেওয়া বীরঙ্গনা খেতাব পাওয়ার পর থেকেই এই জমি জোরপূর্বক দখলের পায়তারা করছে। জমি লোভী মগরবদের বিচার চাই।

মগরব আলী নিজেকে জমির মালিক দাবীকরে বলেন, দীর্ঘদিন যাবত জমিতে মাছ চাষ করে আসছি।