ঢাকা   সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ | ১১ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

হালুয়াঘাটে অপ্রতুল ত্রাণে বিপাকে জনপ্রতিনিধিরা

Logo Missing
প্রকাশিত: 03:48:12 pm, 2020-04-04 |  দেখা হয়েছে: 1 বার।

হালুয়াঘাট থেকে মুহাম্মদ মাসুদ রানাঃ-ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে অপ্রতুল ত্রান নিয়ে বিপাকে রয়েছেন জনপ্রতিনিধিরা। করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া হাজার হাজার মানুষের জন্য যে পরিমান ত্রানের প্রয়োজন তার যতসামান্যই পাওয়া যাচ্ছে। এতে করে দরিদ্র শ্রেনীর মানুষেরা যেমন মানবেতর জীবর যাপন করছেন ঠিক তেমনি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের প্রতিও সাধারণ মানুষের ক্ষোভ বাড়ছে ।প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে উপজেলার ১২ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার জন্য মাত্র ২৭ মেট্রিক টন চাল ও নগদ এক লক্ষ টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রেজাউল করিম। চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল ত্রাণ বিতরণকালে জনপ্রতিনিধিরাও পড়ছেন বিপাকে। ফকির পাড়া গ্রামের রহিম মিয়া বলেন অনেক দিন ধরে কাজকর্ম নেই বলে ঘরে খাবারও নেই। বউ বাচ্ছা নিয়ে খেয়ে না খেয়ে আছি। ১ নং ভূবনকুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুরোজ মিয়া এ প্রতিবেদককে জানান ত্রাণ খুবই অপ্রতুল। ত্রাণের পরিমাণ এবং বিতরণ সংখ্যা বৃদ্ধি করা উচিত। ২ নং জুগলী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুল হাসান জানান, আমার ইউনিয়নে কোন কল-কারখানা নেই। মানুষ লকডাউনে থাকায় তারা খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছে। আমার ইউনিয়নে প্রায় ১৯ টি গ্রাম। ত্রাণ পেয়েছি মাত্র ৬০ প্যাকেট । এ ত্রান নিয়ে এলাকায় বের হতে পারছি না। প্রত্যেকটি ইউনিয়নে প্রায় ৫০-৬০ মেট্রিকটন চালপ্রয়োজন। ৮ নং নড়াইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানান, যে পরিমাণ প্রাণ পেয়েছি তা খুবই সামান্য। সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের কাছে আহ্বান জানায় ত্রান বৃদ্ধি করা হোক। ৪নং সদর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান খসরু জানান, যে পরিমাণ ত্রান পেয়েছি তা পর্যাপ্ত নয়। জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নয়া দিগন্তকে বলেন, অসহায় ও কর্মহীন মানুষের জন্য সরকারী ত্রান সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। আমরা আরো চেষ্টা করছি। তবে সরকারের সহযোগিতার পাশাপাশি এলাকার ধনাঢ্য ব্যক্তিদেরও এগিয়ে আসতে হবে।