ঢাকা   সোমবার ০৬ এপ্রিল ২০২০ | ২৩ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

নালিতাবাড়ীতে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত

Logo Missing
প্রকাশিত: 05:44:25 pm, 2020-03-08 |  দেখা হয়েছে: 21 বার।

নালিতাবাড়ী : আজ ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। দিবসটি উদ্যাপনে নালিতাবাড়ী উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা মহিলা অধিদপ্তর এর আয়োজনে এবং সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)-টিআইবি, আইপিডিএস, নালিতাবাড়ীর সহযোগিতায় আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০২০ উদ্যাপিত হয়। দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে সকালে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করা হয়। র‌্যালিতে সহকারি কমিশনার (ভূমি) লুবনা শারমীন নেতৃত্ব দান করেন। র‌্যালিটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পূনরায় উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়। এরপর দিবস উপলক্ষে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সাজেদা আরফিনের সভাপতিত্বে ও ক্লোডিয়া নকরেকের সঞ্চালনায় আলাচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা চেয়ারম্যান মো: মোকছেদুর রহমান লেবু এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো: আমিনুল ইসলাম ও সনাক সভাপতি এন এম সাদরুল আহসান উপস্থিত ছিলেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন টিআইবির আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক এস এম আতিকুর রহমান সুমন। এছাড়া বক্তব্য রাখেন সিমিয়ন ঘাগ্রা, অনন্যা সাংমা প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, বিশ^ জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক নারী। বাংলাদেশেরও মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক নারী। তাই নারীদের সক্রিয় অংশগ্রহণ ছাড়া টেকসই উন্নয়ন অসম্ভব। জাতিসংঘের সিডও  সনদে স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ নারী ও শিশুর প্রতি সব ধরণের বৈষম্য বিলোপে অঙ্গীকারাবদ্ধ। বাংলাদেশের সংবিধানের ২৮(২) অনুচ্ছেদে ‘রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে নারী পুরুষের সমান অধিকার’ এর কথা বলা হয়েছে। এছাড়া ২৮(৪) অনুচ্ছেদে উল্লেখ করা হয়েছে যে ‘নারী বা শিশুদের অনুকূলে বিশেষ বিধান প্রণয়নে রাষ্ট্রকে নিবৃত্ত করা যাবে না’। সিডও সনদের ২ ও ১৬ (১) (গ) ধারাতেও এই বিষয়গুলির উল্লেখ আছে। নারীর অধিকার ও ক্ষমতায়ন নিশ্চিতে বাংলাদেশ সরকার বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট আইন ও বিধিমালা প্রণয়ন করেছে। সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার (২০১৬-২০২০) জেন্ডার বিষয়ক লক্ষ্যমাত্রাতেও নারী-পুরুষের সমান সুযোগ ও অধিকার এবং রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক উন্নয়নে নারীর সমান অবদানের স্বীকৃতি দেয়ার কথা বলা হয়েছে। জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতিমালা ২০১১Ñতেও এমন সমাজ প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়েছে যেখানে নারী-পুরুষের সমান সুযোগ থাকবে এবং সমতাভিত্তিক মৌলিক অধিকারসমূহ ভোগ করবে। গত দুই দশকে জেন্ডার সমতা ও নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের ঈর্ষণীয় সাফল্য আছে। নারী-পুরুষ সমতা প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে বাংলাদেশ। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম প্রকাশিত বৈশি^ক লিঙ্গ বিভাজন সূচক ২০২০ (গেøাবাল জেন্ডার গ্যাপ ইনডেক্স) অনুযায়ী ১৫৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৫০তম। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে এখনো শীর্ষে আছে বাংলাদেশ। টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ৫ অনুযায়ী নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা ও নারী-পুরুষের বৈষম্য রোধ এবং নারী শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বাংলাদেশের ইতিবাচক অগ্রগতি জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত। মাতৃ ও শিশুমৃত্যুর হার হ্রাসে প্রতিবেশি দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশ এগিয়ে আছে। নারী ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের অগ্রগতি হলেও নারীর প্রতি চলমান সহিংসতা নারীর অগ্রযাত্রায় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নির্যাতনকারীরা প্রভাবশালী ও ক্ষমতা সংশ্লিষ্ট হওয়ায় ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতির মাধ্যমে এসব মামলায় ন্যায়বিচার বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। এসব ক্ষেত্রে অধিকার হরণ ও ন্যয়বিচার প্রাপ্তিতে অন্যতম প্রতিবন্ধক দুর্নীতি। বক্তরা নারীর ক্ষমতায়ন ও সম-অধিকার প্রতিষ্ঠায় নারী-পূরুষের সম-ভাবে এগিয়ে আসা, মানসিকতার পরিবর্তন ও কার্যকর দুর্নীতি প্রতিরোধের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!