ঢাকা   সোমবার ২১ অক্টোবর ২০১৯ | ৬ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

টানা বৃষ্টি ও ভারি বর্ষণে পাহাড় ধসে বিপর্যস্ত রোহিঙ্গা আশ্রয়কেন্দ্র

Logo Missing
প্রকাশিত: 07:42:40 pm, 2019-07-05 |  দেখা হয়েছে: 12 বার।

এম. উজ্জল:
কক্সবাজারের উখিয়া থেকে:
গত কয়েকদিন কক্সবাজার ও টেকনাফে টানা বৃষ্টি ও ভারি বর্ষণে পাহাড় ধসে বিপর্যস্ত রোহিঙ্গাদের আশ্রয়কেন্দ্র। যে কারণে রোহিঙ্গাদের জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে।
বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের অভ্যুত্থানের পর থেকে রোহিঙ্গাদের নানা সমস্যায় ব্যাপকভাবে জর্জরিত। বিদেশী দাতাসংস্থাদের সাহায্যে রোহিঙ্গাদের সমস্যা কিছুটা দূর হলেও অভ্যান্তরিন আবহাওয়া ও প্রাকৃতিক দুর্যেোগের কারনে রোহিঙ্গাদের বসতিগুলো রয়েছে ঝুকির মুখে। যেকোন সময় দুর্ঘনায় আঁচড়ে পড়েছে তারা। বর্তমানে বাংলাদেশে আবহাওয়ার বিপর্যয় ঘটার কারনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মত কক্সবাজার এলাকায় ব্যাপকভাবে ঝড়-বৃষ্টি শুরু হয়েছে তাই রোহিঙ্গাদের আবাসনগুলো রয়েছে ব্যাপক ঝুকির মুখে।

রেহিঙ্গাদের আসার পর থেকে সংস্থাগুলো ব্যাপকভাবে তাদের খোঁজখবর নিলেও স্বার্থন্বেষি কিছু সংস্থা বর্তমানে তাদের দেখা তেমন একটা যায়না যার কারনে তারা আবাসনের কষ্ট ব্যাপক বিপদের সম্মুখিন হয়ে পড়েছে।রোহিঙ্গাদের আশ্রয়কেন্দ্রগুলো ভালভাবে কাজ না করায় ও পুনরায় মেরামত না করায় আবাসনগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। প্রতিদিন বৃষ্টি আসার কারনে পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থান নেওয়া রোহিঙ্গা শিবির এর আবাসনে পানি পড়ে ও পাহাড় ভেঙ্গে যাচ্ছে যার দরুন তারা হুমকীর মুখে জীবনযাপন করছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলো খোজ নিয়ে দেখা যায় বেশিরভাগ ঘরের চাল হালকা ত্রিপল/ছাওনী দেওয়ায় তা ছিড়ে খন্ড খন্ড হয়ে ঘরের বিভিন্ন স্থানে পানি পড়ায় তাদের খাওয়া-দাওয়া ও শুয়ার জায়গাগুলো নষ্ট হয়েগেছে তাই তারা উদ্বেগ জানায় এবং কান্নাকাটি করতে থাকে।

উখিয়া উপজেলার বিভিন্ন ক্যাম্প যেমন:কুতুপালং, জামতলি, শফিউল্লাকাটা,হাকিমপাড়া,হ্নীলা টেকনাফ, আলীখালি,কাটাখালি, হোয়াইক্যাং, তানজিমারঘুনা সহ অনেকগুলো ক্যাম্পে এই সমস্যাগুলো ব্যাপকভাবে দেখা যায়।পাহাড় ধসে অনেকের ঘর ভেঙ্গে যাওয়ায় তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে নানা সমস্যায় দিন কাটছে। বর্তমানে বিভিন্ন সংস্থা আবার তাদের পাশে এসে দাড়ানোর অভয় দেওয়ায় তাদের ভিতরে কিছুটা কষ্ট দুর হবে বলে তারা বেশ খুশি। 

রোহিঙ্গাদের দাবি হল দেশের সরকার যদি তাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দিয়ে নিজ দেশে নিজের দেশে ফিরিয়ে নেয় তাহলে তারা নিজ দেশে ফিরে যেতে চায়  এজন্য বাংলাদেশ সরকার সহ আন্তর্জাতিক মহলে সহযোগিতার জন্য আবেদন জানায়। আর বাংলাদেশে থাকাকালীন সরকারের ও সংস্থাদের প্রতি আহবান জানায় যদি তাদের আবাসনের স্থানগুলো পর্যবেক্ষন করে উপর্যু্ পদক্ষেপ নিয়ে ঠিক করে দেয় তাহলে তাদের কষ্ট কিছুটা লাঘব হবে বলে মনে করেছেন অনেকেই।
দেশের গবেষকদের কথায় বুঝা যায সকলের সহযোগিতায় রোহিঙ্গাদের সমস্যা সমাধান হবে বলে আশাব্যক্ত করেছেন অনেকেই।
গত কয়েকদিন কক্সবাজার ও টেকনাফে টানা বৃষ্টি ও ভারি বর্ষণে পাহাড় ধসে বিপর্যস্ত রোহিঙ্গাদের আশ্রয়কেন্দ্র। যে কারণে রোহিঙ্গাদের জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে।
বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের অভ্যুত্থানের পর থেকে রোহিঙ্গাদের নানা সমস্যায় ব্যাপকভাবে জর্জরিত। বিদেশী দাতাসংস্থাদের সাহায্যে রোহিঙ্গাদের সমস্যা কিছুটা দূর হলেও অভ্যান্তরিন আবহাওয়া ও প্রাকৃতিক দুর্যেোগের কারনে রোহিঙ্গাদের বসতিগুলো রয়েছে ঝুকির মুখে। যেকোন সময় দুর্ঘনায় আঁচড়ে পড়েছে তারা। বর্তমানে বাংলাদেশে আবহাওয়ার বিপর্যয় ঘটার কারনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মত কক্সবাজার এলাকায় ব্যাপকভাবে ঝড়-বৃষ্টি শুরু হয়েছে তাই রোহিঙ্গাদের আবাসনগুলো রয়েছে ব্যাপক ঝুকির মুখে।

রেহিঙ্গাদের আসার পর থেকে সংস্থাগুলো ব্যাপকভাবে তাদের খোঁজখবর নিলেও স্বার্থন্বেষি কিছু সংস্থা বর্তমানে তাদের দেখা তেমন একটা যায়না যার কারনে তারা আবাসনের কষ্ট ব্যাপক বিপদের সম্মুখিন হয়ে পড়েছে।রোহিঙ্গাদের আশ্রয়কেন্দ্রগুলো ভালভাবে কাজ না করায় ও পুনরায় মেরামত না করায় আবাসনগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। প্রতিদিন বৃষ্টি আসার কারনে পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থান নেওয়া রোহিঙ্গা শিবির এর আবাসনে পানি পড়ে ও পাহাড় ভেঙ্গে যাচ্ছে যার দরুন তারা হুমকীর মুখে জীবনযাপন করছে। রোহিঙ্গা ক্যাম্প গুলো খোজ নিয়ে দেখা যায় বেশিরভাগ ঘরের চাল হালকা ত্রিপল/ছাওনী দেওয়ায় তা ছিড়ে খন্ড খন্ড হয়ে ঘরের বিভিন্ন স্থানে পানি পড়ায় তাদের খাওয়া-দাওয়া ও শুয়ার জায়গাগুলো নষ্ট হয়েগেছে তাই তারা উদ্বেগ জানায় এবং কান্নাকাটি করতে থাকে।

উখিয়া উপজেলার বিভিন্ন ক্যাম্প যেমন:কুতুপালং, জামতলি, শফিউল্লাকাটা,হাকিমপাড়া,হ্নীলা টেকনাফ, আলীখালি,কাটাখালি, হোয়াইক্যাং, তানজিমারঘুনা সহ অনেকগুলো ক্যাম্পে এই সমস্যাগুলো ব্যাপকভাবে দেখা যায়।পাহাড় ধসে অনেকের ঘর ভেঙ্গে যাওয়ায় তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে নানা সমস্যায় দিন কাটছে। বর্তমানে বিভিন্ন সংস্থা আবার তাদের পাশে এসে দাড়ানোর অভয় দেওয়ায় তাদের ভিতরে কিছুটা কষ্ট দুর হবে বলে তারা বেশ খুশি। 

রোহিঙ্গাদের দাবি হল দেশের সরকার যদি তাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দিয়ে নিজ দেশে নিজের দেশে ফিরিয়ে নেয় তাহলে তারা নিজ দেশে ফিরে যেতে চায়  এজন্য বাংলাদেশ সরকার সহ আন্তর্জাতিক মহলে সহযোগিতার জন্য আবেদন জানায়। আর বাংলাদেশে থাকাকালীন সরকারের ও সংস্থাদের প্রতি আহবান জানায় যদি তাদের আবাসনের স্থানগুলো পর্যবেক্ষন করে উপর্যু্ পদক্ষেপ নিয়ে ঠিক করে দেয় তাহলে তাদের কষ্ট কিছুটা লাঘব হবে বলে মনে করেছেন অনেকেই।
দেশের গবেষকদের কথায় বুঝা যায সকলের সহযোগিতায় রোহিঙ্গাদের সমস্যা সমাধান হবে বলে আশাব্যক্ত করেছেন অনেকেই।